বাসর রাতের জন্য ছেলেদের কী কী প্রস্তুতি নিতে হয় আগে থেকে?

এতদিন দায়িত্বমুক্ত ছিলেন। এখন পূর্ণ একজন মানুষের দায়িত্ব আপনার কাঁধে। মৃত্যু পর্যন্ত সুখ ও সমৃদ্ধির সাথে কিভাবে এই গুরু দায়িত্ব পালন করে যেতে পারেন এবং এই দায়িত্ব পালনের স্বার্থে কী কী সহযোগিতা আপনার প্রয়োজন হবে- এই সব কিছু নিয়েই আগ থেকে ভালোমতো প্রস্তুতি নিয়ে যাবেন।

এরপর ঘরে গিয়ে আপনার ভাবনাগুলি বউয়ের সাথে শেয়ার করবেন। জীবনের ভালো-মন্দ, চড়াই-উৎরাই নিয়ে বিশদ আলোচনা করবেন।

আপনার কী কী ভালো লাগে ওকে জানাবেন। ওর কী কী ভালো লাগে জেনে নেবেন।

তবে বিগত জীবনের ভুল ভ্রান্তি নিয়ে আলাপ করা উচিৎ না। এগুলো তিক্ততার জন্ম দেবে। যেমন এক্স গফের কথা জিজ্ঞেস করলেন ইত্যাদি।

সর্বোপরি আগামী ভবিষ্যতটা কী কী উপায়ে সুন্দর করা যায় ওসব নিয়েই ভাবা উচিৎ। অন্যসব কাজ আপনি বাকি দিনগুলিতেও করতে পারবেন। ….. শুভ কামনা Aooble টীম

বাসর রাতের জন্য পুরুষ নেবেন যে ৬টি বিশেষ প্রস্তুতি

০১ বিয়ের আগে মানসিক প্রস্তুতি : বিয়ের জন্য প্রতিটি পুরুষেরই মানসিক ভাবে প্রস্তুতি গ্রহণ করা উচিত। হুট করে নতুন জীবনে পা দেয়ার সময় অধিকাংশ পুরুষেরই আত্মবিশ্বাস থাকে না। কিন্তু নারীরা আত্মবিশ্বাসী পুরুষদেরকে বেশি ভালোবাসে। তাই নিজেকে আত্মবিশ্বাসী করে তোলার জন্য মানসিক প্রস্তুতি নেয়া প্রয়োজন। সেই সঙ্গে একটি নতুন জীবনে পা দেয়ার আগে নানান রকম ভয় ভীতি থাকে মনে। সেগুলোও ঝেড়ে ফেলা প্রয়োজন বিয়ের আগেই।

০২ ব্যায়াম : নারীরা সুঠাম দেহের পুরুষদেরকে পছন্দ করে। আর তাই সাড়া জীবন ব্যায়াম করার অভ্যাস না থাকলেও বিয়ের আগে কিছুদিন ব্যায়াম ও ডায়েটের মাধ্যমে ভুড়ি এবং অতিরিক্ত মেদ কমিয়ে ফেলার চেষ্টা করা উচিত।

০৩ স্টাইল, ত্বকের যত্ন ও পরিচ্ছন্নতাঃ বিয়ের আগে প্রয়োজন গ্রুমিং এর। চুলটাকে সুন্দর কোনো স্টাইলে ছাটুন। সেই সঙ্গে ত্বকের যত্নের জন্য ভালো কোনো পার্লারে ফেসিয়াল করিয়ে নিন। সেই সঙ্গে শারীরিক পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখুন। সুন্দর কোনো সুগন্ধি ব্যবহার করতে ভুলবেন না বিয়ের রাতে।

০৪ জন্ম নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাঃ যেহেতু বাংলাদেশের অনেক নারীই জন্ম নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা সম্পর্কে জানেন না এবং সেই ব্যাপারে খুব একটা সহজও না। তাই বাসর রাতে আপনার স্ত্রী উপর নির্ভর করবেন না জন্ম নিয়ন্ত্রণের বিষয়টি নিয়ে। জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি কোনটি গ্রহণ করবেন সেটা আপনাকেই ভাবতে হবে এবং সেই অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে আপনাকেই।

০৫ সঙ্গীকে মানসিক ভাবে সহায়তা করার মনোভাবঃ বাংলাদেশের অধিকাংশ নারীই বাসর রাতেই শারীরিক মিলনের জন্য মানসিক ভাবে প্রস্তুত হতে পারেন না। আর তাই তাঁরা স্বামীর কাছ থেকে মনে মনে এই ব্যাপারে একটু সহযোগীতা আশা করেন।

বিয়ের রাতেই তাই স্ত্রীকে বিষয়টি নিয়ে জোর করা উচিত না। সেই সঙ্গে তাকে যথেষ্ট পরিমাণে মানসিক সহায়তা করা উচিত। দুজনের মধ্যে সম্পর্কটা একটু সহজ হওয়ার আগেই শারীরিক মিলনের ব্যাপারে জোর করলে সম্পর্কটা সাড়া জীবনের জন্য তেঁতো হয়ে যেতে পারে।

valobasha
০৬ স্ত্রী জন্য উপহার কিনে রাখা: বাসর রাতটি জীবনের বিশেষ একটি রাত। আর তাই এই রাতটিকে আরো বেশি রোমান্টিক ও স্মরণীয় করে রাখার জন্য স্ত্রীর জন্য বিশেষ কোনো উপহার কিনে রাখতে পারেন।

সেটা হতে পারে হীরের আংটি অথবা ছোট কোনো ফটোফ্রেমে বন্দী করা নিজেদের প্রিয় কোনো মূহূর্তের ছবি। নিজের সামর্থ্য অনুযায়ী ছোট/বড় যা খুশি উপহার দিন। নতুন জীবনের শুরুতেই আপনার এই ছোট্ট ভালোবাসা আপনার স্ত্রীকে মুগ্ধ করবে।

Write A Comment

16 − 12 =

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close